Serey is utilizing Blockchain technology

Nowadays how i feel eid day

sereyibu351


I left my hometown district to study in another city. Annie is a student of B.Sc. (Hons), Part-3. Rajshahi University, Bangladesh. I was born, raised and settled in Kushtia district. So I have to stay in Rajshahi to continue my studies. Rajshahi district is about 120 km away from my house. Although all educational institutions are closed due to the corona virus epidemic, I stay in Rajshahi for other work. Since Eid-ul-Fitr, the biggest festival of Muslims ahead, is waiting, I came home a few days ago.

লেখাপড়া করার জন্য আমি আমার নিজের জেলা ছেড়ে অন্য শহরে থাকি। আনি বি.এস.সি.(অনার্স),পার্ট-৩ এর একজন ছাত্র। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ। আমার জন্ম, বেড়ে উঠা এবং স্থায়ী ঠিকানা হল কুষ্টিয়া জেলা। তাই লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য আমাকে রাজশাহীতে থাকতে হয়। আমার বাড়ি থেকে রাজশাহী জেলা প্রায় ১২০ কিলোমিটার দুরে। করোনা ভাইরাস মহামারীর জন্য যদিও সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, তবুও আমি অন্যান্য কাজের জন্য রাজশাহীতেই অবস্থান করি। যেহেতু সামনে মুসলিমদের সবথেকে বড় উৎসব ঈদ-উল-ফিতর অপেক্ষা করছে, তাই কয়েকদিন আগে আমি বাসায় এসেছি।


Now the Arabic month of Ramadan is underway. Fasting throughout the month of Ramadan is a duty for every healthy and mature person. So this month the daily routine of every Muslim changes a bit. I am no exception. However, after completing all the work of the month of Ramadan, the time that I enjoy the most now is when we break the fast in the evening by the command of Allah and talk to some friends together for some time. Sometime later in the evening we sit in a secluded place some distance from our house and talk for several nights. The fatigue of the whole day we then unknowingly forget.


এখন আরবি রমজান মাস চলছে। পুরো রমজান মাস জুড়ে রোজা পালন করা প্রতিটি সুস্থ এবং প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের জন্য ফরজ কাজ। তাই এই মাসে প্রতিটি মুসলিমের প্রাত্যহিক রুটিন কিছুটা পরিবর্তন হয়। আমিও এর ব্যতিক্রম নয়। তবে রমজান মাসের সকল কাজ সম্পূর্ণ করে যে সময় টা এখন আমার সবথেকে বেশি উপভোগ্য সেটা হল সন্ধ্যায় আল্লাহর আদেশে রোজা ভাঙ্গার পরে কয়েকজন বন্ধু মিলে আমরা যখন একসাথে কিছু সময় গল্প করি। সন্ধ্যার কিছু সময় পরে আমরা আমাদের বাড়ি থেকে কিছু দুরে একটা নিরিবিলি স্থানে বসি এবং বেশ রাত পর্যন্ত গল্প করি। সারাদিনের ক্লান্তি আমরা তখন বেমালুম ভুলে যায়।

We are friends in school life and now we live in different cities. So we rarely meet face to face all year round. Only before Eid can we all get together. The joy of Eid was multifaceted in childhood. As much as we used to enjoy all year round, we had more fun in one Eid than in our childhood. But as I get older, the joys of different jobs and thoughts have changed a lot. What I can think of most now for the joy of Eid is to meet all the acquaintances together. Because at this time everyone comes home to celebrate Eid with their loved ones.

আমরা স্কুল জীবনের বন্ধুরা একেকজন এখন একেক শহরে থাকি। তাই সারাবছর আমাদের সামনা সামনি খুব কম দেখ সাক্ষাৎ হয়। শুধুমাত্র ঈদ এর আগেই আমরা সবাই একত্র হতে পারি। ছোটবেলায় ঈদের আনন্দ বহুমুখী ছিল। সারাবছর আমরা যতটা আনন্দ করতাম, শুধু এক ঈদেই তার থেকে বেশি মজা করেছি ছোটবেলায়। কিন্তু দিনদিন যত বড় হচ্ছি বিভিন্ন রকম কাজ আর চিন্তায় আনন্দ গুলো অনেক পরিবর্তন হয়েছে। ঈদের আনন্দ বলতে এখন সবথেকে বেশি যেটা মনে করতে পারি সেটা হল সব পরিচিত মানুষদের সাতে একসাথে দেখা হওয়া। কারণ এসময় সবাই বাড়িতে আসে প্রিয় জনের সাথে ঈদ করতে।

611.929 SEREY
9 votes
1 downvote
Global
Global

Comments