Serey is utilizing Blockchain technology

লাউয়ের বীচি খাওয়ার উপকারিতা।

mdrasel442

লাউয়ের বীচি (বেলপাতা) এর গুণাগুণ বিষয়ে কিছু বলতে পারি:

 

- লাউয়ের বীচিতে ভিটামিন এ, সি, কে এবং ভেষজ উপাদান পর্যাপ্ত মাত্রায় থাকে। এগুলো শরীরের জন্য খুব কাজে লাগে।

 

- বীচি রয়েছে ফাইবার, প্রোটিন, আয়রন এবং অন্যান্য খনিজ লবণ যা আপনার আহারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

 

- বীচিতে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা শরীরকে ক্ষতিকর রাসায়নিক এবং সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করে।

 

- এটি ভেজিটেবিল লিভার মতো মাঝারি ক্যালোরি গুণের, স্বল্প ওজন এবং উচ্চ পুষ্টিগুণের খাবার।

 

- আসবেস্টিয়াস এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে এটি সহায়তা করতে পারে।

 

- এছাড়াও বীচি পেটের সমস্যা, দস্ত এবং কোষ্ঠকাঠিন্য সমাধানে সহায়তা করতে পারে।

 

তাই আপনার খাওয়ার তালিকায় লাউয়ের বীচি অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। এটি শরীরের জন্য অনেক উপকারী।

 

লাউয়ের বীচি খাওয়ার সময় কিছু সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত:

 

1. তাজা এবং পরিষ্কার বীচি ব্যবহার করুন। পুরানো বা ক্ষতিগ্রস্ত বীচি না খান।

 

2. বীচি ভালোভাবে ধুয়ে নিন। কোনো মাটি, ধুলো বা অন্য কিছু থাকলে তা পরিষ্কার করে নিন।

 

3. বীচি দ্বেষাণুমুক্ত (pesticide-free) হলে তা খুব ভাল। যদি না হয় তাহলে পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে নেওয়া জরুরি।

 

4. বীচির সাথে অন্যান্য স্বাস্থ্যকর খাবার যেমন - ভাত, দাল, শাক-সবজি, মাছ ইত্যাদি খাওয়া উচিত।

 

5. বীচি কষে বা ভেজে খাওয়া সবুজ সবজির চেয়ে ভাল। কষে খাওয়ায় পুষ্টিগুণ বেশি থাকে।

 

6. খুব বেশি পরিমাণে বীচি না খাওয়াই ভাল। একবারে বেশি খেলে পাকস্থলী বা পেটে সমস্যা হতে পারে।

 

7. যাঁরা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখছেন তাঁরা বীচির পরিমাণ সীমিত রাখবেন কারণ এতে সোডিয়াম থাকে।

 

এগুলি মেনে চললে লাউয়ের বীচি নিরাপদে এবং সুস্থভাবে খাওয়া যাবে।

 

লাউয়ের বীচি খাওয়ার সময় নিম্নলিখিত পুষ্টিগুণগুলি বিবেচনা করা উচিত:

 

1. ভিটামিন এ: লাউয়ের বীচি ভিটামিন এ-এর ভাল উৎস। ভিটামিন এ দৃষ্টি, চর্ম এবং প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জন্য খুব জরুরি।

 

2. ল্যুটিন ও জিয়াক্সান্থিন: লাউয়ের বীচি এই দুটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভাল উৎস। এগুলি চোখের স্বাস্থ্য বজায় রাখে।

 

3. ফাইবার: লাউয়ের বীচিতে ভরপুর ফাইবার থাকে যা পাকস্থলীর স্বাস্থ্য ভাল রাখতে সহায়তা করে।

 

4. পোটাসিয়াম: লাউয়ের বীচিতে পোটাসিয়াম ভরপুর থাকে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়ক।

 

5. ম্যাগনেশিয়াম: লাউয়ের বীচিতে ম্যাগনেশিয়াম থাকে যা হৃদ্রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

 

6. ক্যালসিয়াম: লাউয়ের বীচিতে ক্যালসিয়ামও থাকে যা হাড় ও দাঁতের স্বাস্থ্য বজায় রাখে।

 

এই পুষ্টিগুণগুলি বিবেচনা করে লাউয়ের বীচি খাওয়া স্বাস্থ্যকর হবে এবং শরীরের বিভিন্ন প্রয়োজন পূরণ করবে।

 

লাউয়ের বীচি খাওয়ার সময় নিম্নলিখিত পরিমাণ খাওয়া উচিত:

 

1. একজন প্রাপ্তবয়স্কের জন্য প্রতিদিন 1/2 কাপ রান্না করা বা কাঁচা লাউয়ের বীচি খাওয়া উচিত। 

 

2. শিশুদের জন্য প্রতিদিন 1/4 কাপ লাউয়ের বীচি খাওয়া যথেষ্ট।

 

3. গর্ভবতী মহিলাদের জন্য প্রতিদিন 3/4 কাপ লাউয়ের বীচি খাওয়া উচিত, যাতে তারা ভিটামিন এ, ফোলেট এবং অন্যান্য পুষ্টিতত্ত্বের চাহিদা পূরণ করতে পারেন।

 

4. বৃদ্ধদের জন্য প্রতিদিন 1/2 কাপ লাউয়ের বীচি খাওয়া উপকারি, যাতে তাঁরা ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ এবং ফাইবারের চাহিদা পূরণ করতে পারেন।

 

এই পরিমাণগুলি বয়স, স্বাস্থ্য অবস্থা এবং চাহিদা অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে পারে। তবে এই পরিমাণে লাউয়ের বীচি খাওয়া সুস্বাস্থ্যকর হবে।

1313.080 SRY$0.00
Global
Global

Comments